বর্তমান সময়ে বহুল ব্যবহৃত ফোন হলো এন্ড্রোয়েড অপারেটিং সিস্টেমের ফোন। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে নিত্যনতুন আপডেট নিয়ে আসে এন্ড্রোয়েড ফোন। এবার এন্ড্রোয়েড ভক্তদের জন্য OnePlus নিয়ে এসেছে নতুন এক স্মার্টফোন OnePlus 5T.  Android 7.1.1 (Nougat) অপারেটিং সিস্টেমের এই ফোনে থাকছে-

  • 6.01 ইঞ্চির বিশাল ডিসপ্লে ও 2160×1080 পিক্সেল রেজুলেশন 401 পিপিআই; আরআরজিবি / ডিসিআই-পি 3 কালার স্পেস সাপোর্ট করে
  • অ্যলুমিনিয়ামের বডি ও 2.5D গোরিলা গ্লাস ভার্শন ৫
  • দূর্দান্ত ক্যামেরা এক্সপেরিয়েন্সের জন্য রয়েছে ১৬ এবং ২০ মেগাপিক্সেলের ডুয়েল ক্যামেরা, আর ফ্রন্ট ক্যামেরা হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা
  • কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন চিপসেট ৮৩৫, অক্টা কোর সিপিইউ এবং Adreno 540 GPU.
  • ৬ জিবি র‍্যামের সাথে থাকছে ৬৪ জিবি স্টোরেজ ও ৮ জিবি র‍্যামের সাথে থাকছে ১২৮ জিবি স্টোরেজ
  • 3300mAh Li-Po (sealed) ব্যাটারি
  • ডুয়াল সীম GSM / CDMA / HSPA / LTE, জিপিএস, ব্লুটুথ ভার্শন ৫

OnePlus 5T হ্যান্ডস অন রিভিউ

ওয়ানপ্লাস 5T ২০১৭ সালের অক্টোবরে ঘোষনা করা হয়েছিল এবং নভেম্বরের ২১ তারিখ রিলিজ হয়েছে। ফোনটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে এন্ড্রোয়েড নগাট ৭.১.১, যার ফলে যেকোনো এপস্‌ ব্যবহার করা যাবে অনায়াসেই। এছাড়া দুর্দান্ত গেমিং এক্সপেরিয়েন্সের জন্য রয়েছে  কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন চিপসেট ৮৩৫, যার ফলে যেকোনো কাজ অনেক দ্রুত প্রসেস করা যাবে। আর সেই সাথে 2.45GHz অক্টা কোর সিপিইউ তো থাকছেই। গ্রাফিক্স কোয়ালিটি নিয়ে যারা চিন্তিত থাকেন তাদের জন্য রয়েছে Adreno 540 GPU যা আপনাকে দিবে ভিন্যমাত্রা অভিজ্ঞতা।

আরও আছেঃ Vivo V7+ Full Specification এন্ড বাংলা রিভিউ

ডিজাইন এন্ড ডিসপ্লে

ফোন কেনার সময় যখন বাজেট বেশি থাকে তখন ডিজাইনের বিষয় সবার প্রথমেই স্থান পায়। কারন, আপনি অবশ্যই চাইবেন না যে আপনার শখের ফোনের ডিজাইন নিয়ে কেও এমন কোনো মন্তব্য করুক যাতে আপনার খারাপ লাগে। OnePlus 5 যারা ব্যবহার করেছেন তারা এই সিরিজের ফোন সম্বন্ধে আগে থেকেই জানেন। তাদের ব্যবহারের মাত্রায় নতুনত্ব যোগ করতেই OnePlus নতুন এই ফোনটি নিয়ে এসেছে। তিনটি ভিন্ন ভিন্ন কালারে ওয়ানপ্লাস 5T পাওয়া যাচ্ছে। Midnight Black, Gunmetal, Soft Gold এই তিনটি কালারে পাওয়া যাচ্ছে। 6.01 ইঞ্চির এই মোবাইলে ব্যবহৃত হয়েছে অপটিক অ্যামোলেড ক্যাপাসিটিভ টাচস্ক্রিন 16M colors. ফোনটির ভিডিও কোয়ালিটি ভালো করতে ব্যবহৃত হয়েছে 1080 x 2160 pixels রেজুলেশন, যার এসপেক্ট রেশিও 18:9. এটাতে QHD (2K) display ব্যবহার করা হয়েছে। তবে তার মানে এই নয় যে, এর ডিসপ্লে কোয়ালিটি নিম্নমানের। এর AMOLED panel colors অনেক উজ্জ্বল হওয়ার ডিসপ্লের মান অনেক ভালো। ফোনটিতে ব্যবহৃত অ্যলুমিনিয়ামের মেটাল বডি ফোনটির সৌন্দর্য যেমন ফুটিয়ে তুলে তেমনি এটাকে আকর্ষনীয়ে করে তুলেছে। এছাড়া নিরাপত্তা স্তর বৃদ্ধি করার জন্য ব্যবহৃত হয়েছে ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর। এর Dimension হলো 156.10 x 75.00 x 7.30 mm এবং ওজন ১৬২ গ্রাম. OnePlus 5T তুলনামূলকভাবে OnePlus 5 এর চেয়ে অধিক প্রশস্ত, বড় এবং শক্তশালী হলেও এর থিকনেস্‌ ওয়ানপ্লাস 5 এর সমান। আর এই ফোনের সাইজ, ওজন  LG V30 and iPhone 8 Plus এর সমান।

oneplus 5t design

ফোনটির power/lock key ডানপাশে এবং Volume Key বামপাশে রাখা হয়েছে। ফোনটিতে এন্টি ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে। আর ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর পেছনের অংশে রাখা হয়েছে, যার ফলে খুব সহজেই সেটি ব্যবহার করা যায়। এই ফোনের Face recognition সিস্টেম অনেক ইজি, ফাস্ট এবং ইফেকটিভ।  যার ফলে অনেক ভালো Performance পাওয়া যায়।

Performance

কোয়ালকমের পাওয়ারফুল Snapdragon 835 processor রয়েছে ফোনটিতে। যা আপনাকে যেকোনো কাজ করতে দিবে অসাধারন অভিজ্ঞতার স্বাদ। ফোনটিতে হাই রেজুলেশনের যেকোন গেম অনেক ফাস্ট খেলা যায়। সাধারনত যেকোনো ফোনে ৪ জিবি র‍্যাম দেওয়া থাকে। কিন্তু এই ফোনে ব্যবহৃত হয়েছে ৬ জিবি র‍্যাম। যার ফলে একাধিক কাজ একত্রে দ্রুতগতিতে করা যায়।

oneplus 5t gaming performance

Battery Life

অসময়ে চার্জ চলে গেলে কার ভালো লাগে বলুন? তাই ওয়ানপ্লাস 5T তে 3,300mAh battery ব্যবহৃত হয়েছে, যা আপনাকে অনায়াসে একদিনের ব্যকআপ দিবে। অনেকেই ভাবতে পারেন মাত্র ৩৩০০ মিলি. অ্যাম্পায়ারের ব্যটারিতে সারাদিন হয়তো চার্জার লাগিয়ে রাখতে হবে। তাদের জন্য বলছি, এতো দুঃচিন্তা করার কিছু নেই। কারন 5T এর পার্ফমেন্স অনেক নিখুত। আর সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো এর ব্যাটারি ব্যাকআপ LG V30, iPhone 8 Plus and Razer Phone এর চাইতে বেশি। তাই আপনি নিঃসন্দেহে 5T ব্যবহার করতে পারেন। এই ফোনের অন্যতম ফিচার হলো Dash Charge technology.যার মানে আপনি মাত্র ৩০ মিনিটে সারাদিন চলার মত চার্জ করতে পারবেন। এর দ্রুত চার্জিং টেকনোলজির মাধ্যমে আপনি ৬০% চার্জ করতে পারবেন ৩০ মিনিটেই। ২০১৭ সালে ওয়্যারলেজ চার্জার অনেক জনপ্রিয়তা লাভ করলেও OnePlus 5T তে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়নি। ফোনটিতে ব্যবহৃত মেটাল বডির কারনে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা সম্ভব হয়নি। তবে সব মিলিয়ে 5T এর ব্যাটারির অ্যম্পিয়ার তুলনামূলকভাবে কম হলেও এর ব্যাটারি কোয়ালিটি এবং পার্ফমেন্স দুটোই অনেক ভালো।

Camera Features

  • ডুয়াল মেইন ক্যামেরা 16MP + 20MP with Sony sensors
  • ফ্রন্ট ক্যামেরা ১৬ মেগাপিক্সেল

প্রথমত, এক কথায় যদি বলতে যাই তাহলে বলতে হবে OnePlus 5T এর ক্যামেরা অসাধারন। ওয়ানপ্লাস 5 এর মতো 5T তেও ডুয়াল মেইন ক্যামেরা ইউজ করা হয়েছে। আর দুটোতেই সনি সেন্সর। ফোনটির aperture f/1.7 যা দিয়ে কম আলোতেও অনেক ভালো ছবি তুলা যায়। সেইসাথে 27.22mm Focal Length তো থাকছেই। Oneplus বলেছে যে, 10 lux এর নিচে নেমে যায় তখনো এই ফোন দিয়ে অসাধারন ছবি তুলা যায়। এছাড়া এই ফোনে Intelligent Pixel টেকনোলোজি ব্যবহার করা হয়েছে। যা চারটি পিক্সেলকে একত্রিত করে একটি পিক্সেলে রুপান্তরিত করে। যার ফলে ছবির ক্লিয়ারিটি অনেক বেড়ে যায় এবং নয়েজ ও ব্লার কমে যায়। এছাড়া দূরের জিনিসের ছবি তোলার জন্য রয়েছে Natural 2x zoom ফাংশন। 5T এর portrait  মুড অনেক ভালো কাজ করে। যার ফলে যেকোনো অবজেক্টের ব্যকগ্রাউন্ড সুন্দরভাবে ব্লার করা যায়। আর Pro Mode এর মাধ্যমে ISO, White Balance, Shutter Speed, Focus এবং Brightness ম্যানুয়ালি পরিবর্তন করার মাধ্যমে প্রোফেশনাল মানের ছবি নেওয়া সম্ভব।

oneplus 5t camera

Multimedia and Audio Quality

Dirac HD sound সিস্টেমের এই ফোনে যেকোনো গান বা মিউজিক শুনার সময় ভালো আউটপুটপাবেন। লাউডস্পিকার ব্যবহারের মাধ্যমেও কথা বলা যাবে। অতিরিক্ত নয়েজ দূর করার জন্য বিশেষ ধরনের মাইক্রোফোন ব্যবহার করা হয়েছে। আর সেইসাথে 3.5mm HeadPhone jack তো থাকছেই।

ওয়ানপ্লাস 5T বাজার মূল্য

বাংলাদেশ- ৬ জিবি র‍্যাম ৪৪,৫০০ টাকা, ৮ জিবি র‍্যাম  ৫১,৫০০ টাকা প্রায়

ভারত- ৩৭,৯৯৯ রুপি প্রায়

গ্লোবাল- ৬০০$ ডলার এবং ৭০০$ ডলার মাত্র

 

Conclusion

oneplus 5t ratings

ফাইনালি OnePlus 5T নিয়ে একটা কথাই বলবো যে, ফোনটির অভারঅল সবকিছুই অনেক উন্নত মানের। তবে দামটা অনেকের কাছেই একটু বেশি মনে হতে পারে। তবে, যারা ওয়ানপ্লাস 5 ব্যবহার করেছেন তাদের জন্য এই ফোনে অনেক নতুনত্ব নিয়ে এসে ওয়ানপ্লাস। তারা অবশ্যই ফোনটি কিনতে পারেন। আর এই ফোনটির বিল্ড কোয়ালিটি অনেক মজবুত। আর যারা চার্জিং নিয়ে চিন্তা তাদের জন্য Dash Charge technology তো রয়েছেই।
ধন্যবাদ সবাইকে। আপনার সুচিন্তিত মতামত জানাতে ভুলবেন না।