হ্যালো টেকনোলোজি জনতা, কেমন আছেন সবাই?  আশা করি ভাল আছেন। আজকে আমরা জানবো Vivo ব্র্যান্ডের সম্প্রতি নতুন লঞ্চ হওয়া স্মার্টফোন Vivo V7 Plus সম্পর্কে। সেপ্টেম্বর ২০১৭ তে ফোনটি অ্যানাউন্স করা হয় এবং সেপ্টেম্বর থেকেই তা বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। তো আর দেরি কেন চলুন জেনে নেই কেমন হচ্ছে ভিভো ব্র্যান্ডের নতুন স্মার্টফোনটি। চলুন, শুরুতেই এক নজরে দেখে নেই কি কি থাকছে Vivo V7+ Specification এ-

  • Vivo V7+ এর ডিসপ্লে সাইজ হবে 5.99 inches, 92.6 cm2 (~78.4% screen-to-body ratio), 16M colors এবং 720 x 1440 pixels এর রেজুলেশন।
  • এর বডি Dimensons হচ্ছে 155.9 x 75.8 x 7.7 mm
  • ভিভোর এই ফোনে OS হচ্ছে Android 7.1.2 (Nougat) এবং Chipset হিসেবে Qualcomm Snapdragon 450 ব্যবহার করা হয়েছে।
  • ক্যামেরা হিসেবে প্রাইমারি তে রয়েছে 16 Megapixel এবং সেকেন্ডারি হিসেবে 24 Megapixel ব্যবহার করা হয়েছে। ক্যামেরাতে রয়েছে , সেলফি LED ফ্ল্যাশ, ফেস ডিটেকশন, জিও ট্যাগিং, অটো ফোকাস, টাচ ফোকাস সহ ইত্যাদি সেন্সর।
  • ফোনটিতে ইন্টারনাল স্টোরেজ হিসেবে পাবেন ৬৪ জিবি ফ্রি স্পেস এবনং সাথে থাকবে ৪ জিবি র‍্যাম।
  • ব্যাটারি হিসেবে Li-Ion 3225 mAh ব্যবহৃত হয়েছে। যা হবে খুব শক্তিশালী।
  • এছাড়াও নেটওয়ার্ক হিসেবে থাকছে -GSM/HSPA/LTE , আরও থাকছে ডুয়াল ন্যনো সিম স্লট, জিপিএস, ওয়াইফাই,ব্লুটুথ ,ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, প্রক্সিমিটি সেন্সর সহ আরো অনেক কিছু।

Vivo 7+ mobile specification

Vivo V7 Plus Hands on Review Video

সম্প্রতি চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে ভিভো ব্র্যান্ড তাদের নতুন স্মার্টফোন Vivo V7 Plus এর অ্যানাউন্স করে এবং সেপ্টেম্বর মাস থেকেই ফোনটি বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। আরেকটি বিষয় হচ্ছে ভিভো ভি৭+ হচ্ছে Official Smartphone of Fifa World cup Russia 2018.  Android 7.1.2 (Nougat) অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে ফোনটিতে থাকছে যার ফলে আপনি যেকোনো ধরণের আপডেটেড এবং শক্তিশালী এপস্‌ ব্যবহার করতে পারবেন খুব সহজেই কোনো প্রকার বাগ বা ল্যাগ ছাড়াই। এছাড়া আপনি যেকোনো কাজ অনেক দ্রুত প্রসেস করতে পারবেন ফোনটি দ্বারা কারন এতে চিপসেট হিসেবে থাকছে Qualcomm Snapdragon 450। আর ফোনটিতে Octa-core 1.8 GHz Cortex-A53 ব্যভার করা হয়েছে CPU হিসেবে। ফোনটির  গ্রাফিক্স কোয়ালিটি জন্য ব্যবহার করা হয়েছে Adreno 506 যার দ্বারা আপনি মোটামোটি ভাল মানের গ্রাফিক্সের স্বাদই গ্রহণ করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ OnePlus 5T স্পেসিফিকেশন ও রিভিউ

vivo 7 plus design image

Design & Display

প্রথমেই বলতে হয় এর ডিজাইন একা কথায় প্রিমিয়াম। ভি৭+ ফোনে 5.99 inches ডিসপ্লে থাকছে , যা আগের মডেলগুলা অর্থাৎ V5 plus  এবং V3 MAX  এ 5.55 inches ডিসপ্লে ছিল। ভিভোর এই প্রথম কোনো স্মার্টফোন Bodyless Design করা হয়েছে। অর্থাৎ ফ্রন্ট সাইটে 5.99 inches ডিসপ্লে বাদে খুব একটা খালি বডি রাখা হয়নি। ৫.৯৯ ইঞ্চির ডিসপ্লের এই ফোনের এস্পেক্ট রেশিও হচ্ছে  ১৮.৯ । এই এস্পেক্ট রেশিও কিছুদিনের মধ্যে স্ট্যান্ডার্ড রেশিও হয়ে যাবে বলে ধরে নেওয়া যায়। তবে এর খুবই বাজে বিষয় হচ্ছে ডিসপ্লে রেজুলেশন, কারন এখানে রেজুলেশন হিসেবে মাত্র 720 x 1440 pixels পিক্সেল ব্যবহৃত হয়েছে। এই রেজুলেশন থেকে আপনি খুব একটা ভাল মানের  ভিডিও কোয়ালিটি পাবেন না। প্রায় ৬ ইঞ্চির ফোনে ৭২০ পিক্সেল খুব একটা বেশি নয়। আর IPS LCD capacitive touchscreen, 16M colors থাকছে ফোনটির টাচ প্যানেল হিসেবে। ফোনের ডিসপ্লেতে প্রোটেকশন হিসেবে Corning Gorilla Glass 4 গ্লাস ব্যবহার করা হয়েছে । যেটা ফোনের উপরিভাগ বা ফ্রন্ট সাইটকে যে কোনো ধরণের ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে থাকে। 155.9 x 75.8 x 7.7 mm (6.14 x 2.98 x 0.30 in) Dimesion এর  V7+ ফোনটি অনেকটা থিকনেস হবে এবং যার কারনে ফোনটির ওজন হচ্ছে মাত্র ১৬০গ্রাম। এছাড়াও ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট লক । ফোনের সামনের দিকে উপরে থাকছে সেলফি ক্যামেরা আর ক্যামেরার পাশেই আছে স্পিকার এবং সেন্সর। ফোনের ডানদিকে থাকছে পাওয়ার বাটন এবং পাওয়ার বাটনের ঠিক উপরে থাকছে ভলিউম আপ অ্যান্ড ডাউন বাটন। আর বাম দিকে থাকছে ডুয়েল সিম কার্ড স্লট সেই স্লটেই সিমের সাথে মেমোরী কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন। বর্তমানে বাজারে ভি৭+ এর ৪ জিবি র‍্যাম বিশিষ্টএবং ৬৪ গিগাবাইট স্পেস ভার্সনের ফোনটি শ্যাম্পেন গোল্ড, ম্যাট কালো এই দুই কালার পাওয়া যাচ্ছে।

vivo 7 plus image

Performance

ফোন কেনার পার্ফমেন্স কেমনা তা আমাদের সকলকেই ভাবায়। এই ফোনটিতে আপনি খুব স্বাছন্দ্যে কোনো প্রকার বাগ বা ল্যাগ ছাড়াই ব্যবহার করতে পারবেন। কারন ভাল পারফরম্যান্স করার জন্য এতে ব্যবহার করা হয়েছে Android 7.1.2 (Nougat) ওএস। আর চিপসেট হিসেবে Qualcomm Snapdragon 450 ব্যবহার করা হয়েছে । আপনি যদি গেম লাভার হয়ে থাকেন তাহলে ভিভো ভি৭+ এর Octa-core 1.8 GHz Cortex-A53 সিপিইউ এবং গ্রাফিক্স Adreno 506 এর জন্য আপনি ভিভো ব্র্যান্ডের ভি৭+ স্মার্টফোন আপনাকে দারুন গেমিং এক্সপেরিয়েন্স দিয়ে থাকবে।

Battery life

২০১৭ সালে সকল স্মার্টফোন ব্যবহারকারী ভাল ব্যাটারী বা অনেক সময় ব্যাকআপ দিতে সক্ষম এমন স্মার্টফোনই গ্রহণ করতে চায়। আমার নিজের ক্ষেত্রেও তাই, অবশ্যই আমিও বর্তমান সময়ে কম সময় ব্যাকআপ দেওয়া কোনো স্মার্টফোন গ্রহণ কুরতে চাইব না। তাই ভীভো তাদের  এই ফোনটিতে শক্তিশালী অনেক সময় ব্যাকআপ দেওয়ার জন্য Li-Ion 3225 mAh ব্যাটারী ব্যবহার করেছে। যা নন রিমোবাল। আপনি চাইলেই এই ব্যাটারী খুলতে পারবেন না। Li-Ion 3225 mAh ব্যাটারী এই ফোনে ব্যবহার করার জন্য আপনি ফোনটি থেকে খুব ভাল ধরণের ব্যাকআপ পাবেন।

Camerra Features

ভিভো ভি৭+ এ ক্যামেরা হিসেবে যা থাকছে-

  • রেয়ার ক্যামেরায় থাকছে 16 MP (f/2.0, 1/3″, 1.0 µm), Phase detection autofocus, LED flash
  • আর 24 MP, f/2.0, LED flash সেলফি ক্যামেরা থাকছে ফন্ট এ।

ভি৫+ এর তুলনায় ভি৭+ এর ক্যামেরার দিকে ভিভো ব্র্যান্ড যথেষ্ট পরিমান গুরুত্বারোপ করেছে। এর জন্য V7+ এর ফ্রন্ট বা সেলফি ক্যামেরায় ২৪ মেগাপিক্সল ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে। আবার সেলফি ক্যামেরার সাথে এলইডি ফ্ল্যাশ ও যুক্ত করা হয়েছে। যার কারনে আপনি একটু লো লাইট কিংবা অন্ধকারের মধ্যেও সেলফি নিতে পারবেন।আর রেয়ার ক্যামেরার সাথে থাকছে ফেস ডিটেকশন, অটো ফোকাস এবং সুপার এলইডি ফ্ল্যাশ। Vivo V5+ এর তুলনায় V7+ এর ক্যামেরার ছবির কোয়ালিটি অনেকটা বেশি ন্যাচারাল বা বাস্তবধর্মী। ক্যামেরার দিক থেকে ভিভোর অন্য সকল মডেলের স্মার্টফোনের থেকে V7+ ক্যামেরায় কিছু উন্নতি করা হয়েছে। ভি৭+ ক্যামেরায় ফেস ডিটেকশন মোড, অটো ফোকাস থাকার কারনে এর দ্বারা তোলা ছবি অনেকটা ক্লিয়ার হবে। সর্বোপরি ভিভো ব্র্যান্ডের অন্যান্য মডেলের তুলনায় ভি৭+ এর ক্যামেরা অনেকটা ইম্প্রেসিভ।

Multimedia & Audio

অডিও এর ক্ষেত্রে  ভিভো 7+ 32-bit/192kHz audio এবং eActive noise cancellation with Dedicated mic ব্যবহার করেছে । ইন্টারনাল স্টোরেজে আপনি পাবেন ৬৪ গিগাবাইট এবং  এছাড়াও আপনি ২৫৬ গিগাবাইট পর্যন্ত এক্সট্রা মেমোরী স্টোরেজ ব্যবহার করতে পারবেন। সিম কার্ড স্লটে একই সাথে দুইটি সিম এবং একটি মেমোরী ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবেন। থাকছে Loudspeaker আর সেইসাথে 3.5 mm headphone jack তো থাকছেই।

Vivo V7+ বাজার মূল্য

বাংলাদেশ : ২৯, ৯৯০ টাকা প্রায়

ভারত : ১৯ হাজার ৬৩০ রুপি প্রায়

গ্লোবাল : ৩৫০ ডলার প্রায়

Conclusion

ভীভো তাদের অন্যান্য সকল মডেলের থেকে ভি৭+ এ কিছুটা পরিবর্তন এনেছে ঠিকি কিন্তু এরই মধ্যে Vivo V7+ এ বেশ কিছু বিষয় কমতি লক্ষ্য করে গেছে। প্রথমত তারা ভি৭+ এর ৬ ইঞ্চির ডিসপ্লেতে মাত্র ৭২০ পিক্সেল রেজুলেশন ব্যবহার করেছে এর জন্য ভিডিও কোয়ালিটি ভাল দেখা যাবে না । দ্বিতীয়ত ফোনটিতে তারা ফাস্ট চার্জিং অপশনটি রাখে নি এবং ইউএসবি হিসেবে Older USB port ব্যবহার করেছে। তৃতীয়ত ওয়াফাই সিস্টেম এর ক্ষেত্রে Sigle band Wi-Fi ব্যবহার করেছে। এই তিনটি বিষয় ছাড়া বাকি সর্বোপরি বিষয়গুলো আমার মন জয় করেছে। আজকের Vivo V7 plus Review আপনাদের কেমন লাগলো তা জানাতে ভুলবেন না । আর আপনাদের মতামতগুলো আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন।